Main Menu

নতুন প্রাণের কলরব আজই এই বসন্তে….

আখতার-উজ-জামান : সকল কুসং ̄‹ারকে পেছনে ফেলে, বিভেদ ভুলে, নতুন কিছুর প্রত ̈য়ে
সামনে এগিয়ে যাওয়ার সুবার্তাই বসন্ত ঋতু। নতুন রঙ, নতুন ফুল আর পাখির কলতান
দেখে কবি সাহিতি ̈কদের মনে ভেসে বেড়ায় নব দিগন্তে বাঙ্গালীর প্রাণে নতুন কিছু
উপহার দিতে। কিছুটা হলেও ̄^ি ̄— ফিরে আসে সবার প্রাণে। বৃক্ষরাজির গায়ে ফুটে
উঠে নবরূপের ছোঁয়া। বসন্ত যেমন শীতের জীর্ণতা ঝেড়ে ফেলে নতুন করে প্রক…তিকে
বাঁচিয়ে তোলে, তেমনি আমাদের জীবনে সব ব ̈র্থতা, সব ভুল বোঝাবুঝি দূর করে নতুন
জীবনের প্রেরণায় জাগ্রত হতে হবে। বসন্ত যেভাবে সবাইকে আপন করে নেয়, ঠিক
সেইভাবে সব ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়ে দিতে পারলেই নিজেকে
নতুনভাবে আবিষ্কার করতে পারবেন। ফাল্ ̧নের এইদিনটি সবার ভাল কাটুক, ভালবাসায় ভরে
উঠুক আপনার জীবন। বসন্ত বাতাস দোলা দেবে সবার মনে; সাজবে বাসন্তি সাজে। বসন্ত
রাণীর আগমনে মাতাল হবে সুজলা, সুফলা, শস ̈ শ ̈ামলা এই বাংলার প্রান্তর। কচি পাতায়
আলোর নাচনের মতোই বাঙালির মনেও লাগবে দোলা। পাতার আড়ালে আবডালে লুকিয়ে থাকা
বসন্তের দূত কোকিলের মধুর কুহু কুহু ডাক। কবি মনে জেগে উঠবে নতুন নতুন সব
পঙক্তি। ঋতুরাজকে ̄^াগত জানাতে প্রক…তির আজ এতো বর্ণিল সাজ। গাছে গাছে
পলাশ আর শিমুলের মেলা। বাংলার আনাছে-কানাছে তরুন-তরুণী থেকে শুরু করে সব বয়সীরা
ঘুড়ে বেড়ায় এই ঋতুরাজ বসন্তে।
[[[শীতকে বিদায় জানানোর মধ ̈ দিয়েই বসন্ত বরণে চলবে নানা আয়োজন। শীত চলে যাবে
রিক্ত হে ̄—, আর বসন্ত আসবে ফুলের ডালা সাজিয়ে। বাসন্তী ফুলের পরশ আর সৌরভে
কেটে যাবে শীতের জরা-জীর্ণতা। বসন্ত মানেই পূর্ণতা। বসন্ত মানেই নতুন প্রাণের
কলরব। বসন্ত মানেই একে অপরের হাত ধরে হাঁটা। মিলনের এ ঋতু বাসন্তী রঙে সাজায়
মনকে, মানুষকে করে আনমনা। বাঙ্গালীর ঐতিহ ̈ আর সং ̄‹…তিকে আরও এগিয়ে নিয়ে
যেতে বিশেষ দিন ̧লো অনেক ̧রুত্বপূর্ণ।]]]
বসন্ত ষড়ঋতুর শেষ ঋতু। ফাল্ ̧ন এবং চৈত্র মাস মিলে হয় এই ঋতুর আগমন। বসন্ত ঋতুর
শুরুশীত চলে যাবার পর এবং গ্রীষ্ম আসার আগে। গ্রীষ্মমন্ডলীয় এলাকায় তাপমাত্রা বাড়তে
থাকে কারণ পৃথিবী সূর্যের দিকে হেলে থাকে। পৃথিবীর অনেক প্রান্তে এই ঋতুতে ফুল
ফুটে, নতুন গাছের পাতা গজায়, নতুন গাছের জন্ম হয়। এই সময় অনেক পশুপাখি মিলন
ঘটায় এবং বাচ্চার জন্ম দেয়। আবার পৃথিবীর অনেক জায়গায় এই সময় ব…ষ্টিও হয়। এর ফলে
গাছপালা বেড়ে উঠে, ফুল ও ফলের পরবর্তী বেড়ে ওঠায় ̧রুত্বপূর্ন ভূমিকা রাখে। কবি বেগম
সুফিয়া কামাল বসন্তের আবেদনকে এভাবেই তুলে ধরেছেন। “হে কবি! নীরব কেন- ফা ̧ন যে
এসেছে ধরায়, বসন্তে বরিয়া তুমি লবে না কি তব বন্দনায়?” আর কবি সুভাষ
মুখোপাধ ̈ায়ের কথায়, ‘ফুল ফুটুক আর নাই ফুটুক/ আজ বসন্ত’। সতি ̈ই আজ পয়লা
ফাল্ ̧ন। ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন। শীতের রিক্ততা ভুলিয়ে আবহমান বাংলার প্রক…তিতে
আজ ফা ̧নের ছোঁয়া, আ ̧নরাঙা বসন্তের সুর। বসন্তের আমোদনে ফা ̧নের ঝিরিঝিরি
হাওয়া, রক্তিম পলাশ, শিমুল, কাঞ্চন পারিজাত, মাধবী, গামারী আর ম…দু গাঁদার ছোট
ছোট ফুলের বর্ণিল রূপে চোখ জুড়াবে। বোটানিক ̈াল গার্ডেন, রমনা পার্ক, বলধা
গার্ডেন, সোহরাওয়ার্দী উদ ̈ান, ধানমন্ডি লেক, বনানী লেক, মিন্টো রোড, হেয়ার রোড,
চারুকলার পেছনের সবুজ প্রাঙ্গণ ফুলে ফুলে বর্ণিল, উচ্ছল-উজ্জ্বল হয়ে উঠে ফাল্ ̧ন এলে
বাসন্তি হাওয়ায়। ২২ বছর আগে বঙ্গাব্দ ১৪০১ সাল থেকে প্রথম ‘বসন্ত উৎসব’ উদযাপন
করার রীতি চালু হয়। সেই থেকে জাতীয় বসন্ত উৎসব উদ ̈াপন পরিষদ বসন্ত উৎসব আয়োজন
করে আসছে। প্রতি বছরের ন ̈ায় বসন্ত উৎসবের অনুষ্ঠানমালায় কিছুটা ভিন্নতা আনা হয়।
এবারও এর ব ̈তিμম নয়। বসন্তের নাচ, গান ও কবিতার পাশাপাশি প্রতিবাদী নাচ, গান ও
আব…ত্তিরও আয়োজন করেছে জাতীয় বসন্ত উৎসব উদযাপন পরিষদ। আজ চারুকলা অনুষদের
বকুলতলায় সুর মূর্ছনা দিয়ে শুরু হবে বসন্ত আবাহনের দিনব ̈াপী অনুষ্ঠানের প্রথমভাগের
কর্মসূচি। এরপর থাকবে বসন্ত শোভাযাত্রা, আবীর ও ফুলের প্রীতিবন্ধনীর পাশাপাশি থাকবে
নাচ ও গানের আয়োজন

(Visited 1 times, 1 visits today)





Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked as *

*

45 + = 51

Skip to toolbar